সরকার কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নের গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে -প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন

আভা ডেস্কঃ খাদ্য অপচয় রোধ এবং নিরাপদ খাদ্য ও পুষ্টি চাহিদা নিশ্চিতে গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকার কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নের গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে জানিয়ে তিনি প্রতিটি ইঞ্চি জমি আবাদি করার আহ্বান জানান।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বিশ্ব খাদ্য দিবস-২০২১’ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিরাপদ খাদ্য ও পুষ্টির নিশ্চয়তা এবং শিক্ষা ও চিকিৎসাসহ মৌলিক চাহিদা পূরণ করা সরকারের লক্ষ্য। এক ইঞ্চি জমিও যাতে অনাবাদী না থাকে। কারণ অনেক দেশেই এখন খাদ্যের অভাব। দেশের মাটি আছে, মানুষ আছে। আমরা যেনো খাদ‌্য অভাবে না ভুগি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে আর যেনো কোনো দুর্ভিক্ষ না হতে পারে এবং কেউ যেন চক্রান্ত করে দুর্ভিক্ষ সৃষ্টি করতে না পারে, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে। আমরা খাদ‌্য নিরাপত্তা ও খাদ‌্য চাহিদা পূরণ করে যাবো। হতদরিত্রের বিনামূল্যে খাদ‌্য দিয়ে তাদের খাদ‌্য চাহিদা পূরণ করবো।

নিরাপদ খাদ‌্য ও পুষ্টি চাহিদা পূরণে সকলকে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, খাদ‌্যে অপচয় কমাতে হবে। সারাবিশ্বের এক দিকে কিন্তু প্রচুর খাদ‌্য অভাব আবার অন‌্য দিকে প্রচুর খাদ‌্য অপচয় হয়। সেজন‌্য অতিরিক্ত যে খাদ‌্য থাকে তা পুনঃব‌্যবহার করা যায় কিভাবে সেই বিষয়টি আমাদের চিন্তা করতে হবে।

এ সময় কৃষিতে গুরুত্ব দেয়া এবং কৃষির উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, একটি  যুদ্ধবিধ্বস্ত রাষ্ট্র। গোলায় কোনো খাদ‌্য শস্য নেই। একটি ধ্বংস অর্থনীতি। সেই ধংসযজ্ঞ থেকে তিনি দেশকে গড়ে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন। বাংলাদেশের এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি রাখা যাবে না বলে আহ্বান জানিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। কৃষিতে তিনি সর্বোচ্চ বরাদ্দ রাখেন।

খাদ‌্য উৎপাদনে বাংলাদেশে উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরতে গিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ধান উৎপাদনে বাংলাদেশ ৩য়, শাকসবজি উৎপাদনে ৩য়, চা উৎপাদনে চতুর্থ, আলু ও আম উৎপাদনে সপ্তম, পেয়ারা উৎপাদনে ৮ম, অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ে মাছ উৎপাদনে তৃতীয় এবং ইলিশ উৎপাদনে ১ম।

এ সময় কৃষি গবেষক ও কৃষকের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে প্রধানমন্ত্রী জানান, ২০০৯ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে চালের উৎপাদন প্রবৃদ্ধি ১৭ ভাগ, গমের ২১ ভাগ, ভুট্টা ৬৪০ ভাগ, আলু ৯৬, ডালে ৪৪৩ ভাগ, থৈলবীজে ৭৫ ভাগ, সবজির ক্ষেত্রে ৫৩৪ ভাগ এবং পিয়াজের ক্ষেত্রে ২৪৮ ভাগ।

কৃষি যাতে পিছিয়ে না থেকে সেই জন্য সরকার সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ভেজাল খাদ‌্য প্রতিরোধে তার সরকারের নেয়া কঠোর পদক্ষেপের কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

এ সময় তিনি বলেন, বিএনপি আমলে ১৮ জন কৃষকদের হত্যা করেছিলো। বিদ্যুতের জন্য যখন আন্দোলন করেছিলো চাঁপাইনবাবগঞ্জে গুলি করে ৮ জন মানুষকে হত‌্যা করেছিলো। এভাবে উন্নয়ন যাত্রাকে তারা বারবার ব্যাহত করতে চেয়েছিলো। এটা আমাদের জন‌্য দুর্ভাগ্যের বিষয়।

খাবারের সাথে সাথে পুষ্টি দরকার এ জন‌্য সরকার সব ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমিষের উৎপাদন বৃদ্ধিতে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি। সঙ্গে মাংস-ডিম এগুলো উৎপাদন বাড়ছে।

খাবারে বাংলাদেশে কোনও অভাব থাকবে না মন্তব্য করে তিনি গবেষণা বাড়ানোর ওপর জোর দেন, যাতে পণ্য উৎপাদন ক্রমান্বয়ে বাড়ে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০১ সালে গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দেইনি বলে ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হয়নি। দেশ বিক্রি করে তো আমি ক্ষমতায় আসবো না, এটাই বাস্তব। বৃহৎ দুটি দেশ আর প্রতিবেশী দেশের চাহিদা পূরণ করতে পারিনি।

Next Post

পদ্মাপাড়ে পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনের স্থান পরিদর্শনে মেয়র লিটন

শনি অক্টো. ১৬ , ২০২১
শেয়ার করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুনআভা ডেস্কঃ রাজশাহী মহানগরীর পদ্মাপাড়ের লালনশাহ মুক্তমঞ্চ থেকে হযরত শাহ মখদুম (রহ.) মাজার শরীফের সামনে হয়ে পদ্মাগার্ডেন পর্যন্ত এলাকার পরিবেশ রক্ষা ও দর্শনার্থীদের নিরাপত্তায় পুলিশ ক্যাম্প বসানো হবে। এ লক্ষ্যে শনিবার সন্ধ্যায় পদ্মাপাড় পরিদর্শন করেন সিটি মেয়র  এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। পরিদর্শনকালে ছিলেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ […]

Chief Editor

Johny Watshon

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit, sed do eiusmod tempor incididunt ut labore et dolore magna aliqua. Ut enim ad minim veniam, quis nostrud exercitation ullamco laboris nisi ut aliquip ex ea commodo consequat. Duis aute irure dolor in reprehenderit in voluptate velit esse cillum dolore eu fugiat nulla pariatur

Quick Links