‘রেমিমিস’ নামের একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধন

শেয়ার করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন

আভা ডেস্কঃ বিদেশফেরত অভিবাসীদের তথ্য সংগ্রহ, বিশ্লেষণ ও সংরক্ষণে ‘রিটার্নিং মাইগ্রেন্টস ম্যানেজমেন্ট অব ইনফরমেশন সিস্টেম (রেমিমিস)’ নামে একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধন করেছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।

সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বিএমইটি ভবনে অনুষ্ঠানিকভাবে প্ল্যাটফর্মটি উদ্বোধন করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইমরান আহমদ। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) সহায়তায় এই ডিজিটাল প্লাটফরম চালু করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এই রেমিমিস প্লাটফর্মটি অভিবাসন তথ্য ব্যবস্থাপনা ও নির্দিষ্ট পুনঃএকত্রীকরণ সহায়তা কার্যক্রমকে শক্তিশালী ও উন্নত করতে ভূমিকা রাখবে। একই সঙ্গে অংশীদাররা সহজেই বিদেশফেরত প্রবাসীদের দক্ষতা সংক্রান্ত তথ্য পাবেন এবং চাহিদা অনুসারে কমিউনিটি বা বিভিন্ন খাতে প্রবাসীদের দক্ষতা ছড়িয়ে দিতে পারবেন। এসব তথ্য উপাত্ত বিদেশফেরত প্রবাসীদের কী কী চ্যালেঞ্জ আছে জানতে এবং তা মোকাবিলা করতে নীতিনির্ধারকদের সহায়তা করবে। অন্যদিকে নির্দিষ্ট ও প্রমাণভিত্তিক সুরক্ষা কার্যক্রম তৈরিতে সহায়তা করবে।

রেমিমিস প্ল্যাটফর্মের তত্ত্বাবধানে থাকবে জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)। এই ডিজিটাল সিস্টেমে প্রবাসীদের তথ্য নথিভুক্ত করতে বিএমইটি ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার (ইউডিসি) এবং জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি (ডেমো) অফিসের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে।

অনুষ্ঠানে ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুস সালেহীন, বিএমইটির মহাপরিচালক মো. শামসুল আলম, বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত র‌্যানচা টিয়ারিঙ্ক এবং আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) বাংলাদেশের মিশন প্রধন গিওরগি গিগাওরি।

প্ল্যাটফর্মটি উদ্বোধনকালে মন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, ফিরে আসা অভিবাসীদের তথ্য সংরক্ষণের জন্য একটি সমন্বিত ডাটাবেজের প্রয়োজনীয়তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর। রেমিমিস ডাটাবেজ এখন আমাদের এই চাহিদা পূরণে সহযোগিতা করবে। এই প্লাটফর্মের মাধ্যমে আমরা ফিরে আসা অভিবাসীদের জ্ঞান ও দক্ষতা কাজে লাগাতে পারব এবং এর ফলে তারা রাষ্ট্রের জন্য বোঝা হবেন না।

তিনি বলেন, অভিবাসনের পূর্বে অভিবাসীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে আমরা বিনিয়োগ করেছি এবং তাদের সেই দক্ষতা এখন কাজে লাগাতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, রেমিমিস প্লাটফর্ম অভিবাসীদের সঠিক পুনরায় একত্রীরণে সহযোগিতা করবে এবং অভিবাসনে সুশাসন প্রক্রিয়া নিশ্চিত করবে।

মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুস সালেহীন বলেন, দেশে দায়িত্বশীল অভিবাসন ও অভিবাসনে সুশাসনের ডিজিটালাইজেশনের প্রতিশ্রুতির অন্যতম উদাহরণ রেমিমিস। হালনাগাদ করা তথ্য নিশ্চিতে এবং অভিবাসন ব্যবস্থার উন্নয়নে এই সিস্টেম ব্যবহারের জন্য এ খাতে যুক্ত সবাইকে আমি উৎসাহিত করতে চাই।

এই রেমিমিস প্লাটফর্মটি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে পরিচালিত প্রত্যাশা প্রকল্পের আওতায় তৈরি করা হয়েছে। প্রকল্পটির নেতৃত্বে আছে বাংলাদেশ সরকার এবং বাস্তবায়ন করছে আইওএম।

Next Post

আবারো ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করেছে মিয়ানমারের সামরিক জান্তা সরকার

সোম ফেব্রু. ১৫ , ২০২১
শেয়ার করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুনআভা ডেস্কঃ সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে টানা নবম দিনের মতো বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে মিয়ানমারে। রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ভোর রাত থেকেই বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় জড়ো হতে থাকে। যদিও বিকেল থেকে রাস্তায় নামতে দেখা গেছে সামরিক যান। সন্ধ্যা নামার পর পর এই যানের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। চলমান বিক্ষোভ দমনে […]

শিরোনাম

Chief Editor

Johny Watshon

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit, sed do eiusmod tempor incididunt ut labore et dolore magna aliqua. Ut enim ad minim veniam, quis nostrud exercitation ullamco laboris nisi ut aliquip ex ea commodo consequat. Duis aute irure dolor in reprehenderit in voluptate velit esse cillum dolore eu fugiat nulla pariatur

Quick Links